অস্ট্রেলিয়াতে আর রোহিঙাদের বসতি স্থাপন করতে দেওয়া হবে না

চট্টগ্রাম,বাংলাদেশ। বাংলাদেশে নিযুক্ত অস্ট্রেলীয় হাই কমিশনার জানিয়েছেন,তার
দেশের রোহিঙা  শরনার্থীদের অস্ট্রেলিয়াতে বসতি স্থাপন করতে দিতে হয়েছিল কিন্তু আর না,

গত ২৯ জুলাই তার ঘরে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিং এ তিনি এই কথা বলেন।
“আমরা বাংলাদেশ থেকে শরনার্থী নেওয়া বন্ধ করেছি তৃতীয় দেশ বসতি স্থাপন প্রোগ্রামের আওতায়
এবং ২০০৯-১০ সালে আমরা বাংলাদেশ থেকে ১০০ জন রোহিঙা শরনার্থী নিয়েছি,কিন্তু আর না।”
হাই কমিশনার আরো বলেন,বোটে করে আসা আর কোন শরনার্থীর সুযোগ প্রার্থনাকারীকে
অস্ট্রেলিয়াতে প্রবেশ এর অনুমতি দেওয়া হবে না কারণ বার্মাতে রোহিঙ্গা ইস্যু ও অবস্থা এখনও
পরিষ্কার না এবং জীবন এর ঝুকি অস্ট্রেলিয়াতে তাদের যাত্রাপথক্র কঠিন করে তুলেছে।”
“পাপুয়া নিউ গিনির সাথে সম্পাদিত চুক্তি অনুসারে নতুন আসা সবাইকে পাপুয়া নিউ গিনিতে পাঠানো
হবে এবং যদি প্রমানিত হয় তারা শরনার্থী তবে তাদের সেখানে বসতি স্থাপন করতে অনুমতি দেওয়া হবে।
“গত ১৯ জুলাই প্রায় ১০০০ জন মানুষ বোটে করে অস্ট্রেলিয়াতে প্রবেশ করতে চান,নতুন আসা
সবাইকে এই কার্যক্রমের আওতায় আনা হবে।”
“অস্ট্রেলিয়া সরকার পিএনজি সরকারের সাথে সহযোগীতার মাধ্যমে এই পূর্নবাসন কার্যক্রম এ
সহায়তা প্রদান করবে,এবং তাদের নিরাপদ ও যথাযথ বাসস্থান প্রদান করবে।”
যদিও তিনি বলতে পারেননি ঠিক কত জন রোহিঙা শরনার্থী তার দেশে আছে।
রোহিঙ্গা যারা তাদের মাতৃভূমি আরাকান ও ইয়াঙ্গুন ত্যাগ করে অস্ট্রেলিয়াতে যাচ্ছেন তাদের অধিকাংশই
যাচ্ছেন তাদের শিশুদের ভাল জীবন এর জন্য,যদি অস্ট্রেলিয়া এই কার্যক্রমের আওতায় তাদের পাপুয়া নিউ
গিনিতে পূর্নবাসন করেন তবে তাএর কি হবে যারা অস্ট্রেলিয়াতে প্রবেশ করতে চাচ্ছেন।

Leave a Reply