রোহিঙাদের থেকে অর্থ আদায়ের জন্য নতুন পন্থা

মংডূ,আরাকান।দক্ষিন মংডুর ৭ নং এরিয়ার কমান্ডিং অফিসার
নতুন নতুন পদ্ধতি অবলম্বন করছেন রোহিঙ্গাদের থেকে অর্থ আদায়ের জন্য
বিশেষ করে তার নিয়ন্ত্রনাধীন এলাকা থেকে।
“নাসাকা কর্মকর্তা গ্রাম বাসী ও গ্রাম প্রশাসকদের নির্দেশ দিয়েছেন যতে তারা নাসাকা
নিয়ন্ত্রন ক্যাম্পের আশে পাশে টয়লেট ও খামার তৈরী করে,কিন্তু কিছু প্রশাসক এর সুবিধা
নিয়ে গ্রামবাসীদের থেকে যারা ধনী তাদের থেকে ১৫০০ ক্যত ও গরীবদের থেকে ১০০০
ক্যত করে আদায় করছে যা অনেকের পক্ষে দেওয়া সম্ভব নয়,উক্ত অর্থ টয়লেট ও
খামার তৈরী করতে যা দরকার তার থেকে অনেক বেশী।”
খোজা বিল গ্রামের প্রশাসক সায়েদ আলম গ্রামবাসীদের থেকে অর্থ আদায় করছেন এবং
না পেলে তাদের হয়রানীর সম্মুখীন করছেন।
দাঙার পর রোহিঙা সম্প্রদায় কাজ করতে পারছেন না কারণ রোহিঙ্গাদের চলাফেরায় কতৃপক্ষ
বাধা সৃষ্টি করছে এবং তাদের থেকে অর্থ আদায় করছে যখন তাদের ইচ্ছা করছে।”
একজন দিন মজুর জানান,”আমরা কতৃপক্ষ,আর্মি ও নাসাকার দাবি পূরন করতে পারছি না
তাই তারা মিথ্যা ও ভুল অভিযোগে আমাদের জড়িয়ে হয়রানী করছে।”
বিভিন্ন সুত্র মতে,কতৃপক্ষ প্রায় সময় রোহিঙা গ্রামবাসীদের আটক করছে বিভিন্ন অভিযোগে
অর্থ আদায়ের জন্য।”

Leave a Reply