রোহিঙা গ্রামবাসীরা বুতিদং এ খাদ্য সমস্যায় ভুগছেন

রতিদং,আরাকান।রোহিঙ্গা গ্রামবাসীরা খাদ্য,আশ্রয়,ওষুধ ও অন্যান্য মৌলিক অধিকার থেকে রতিদং এ গত জুন
হতে বঞ্ছিত হয়ে আসছেন যখন থেকে রাখাইন উগ্রপন্থীরা রোহিঙ্গাদের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে।

দাঙাতে অধিকাংশ ঘরবাড়ি ধব্বংস হয়ে গেছে বিধায় তারা ঘরে থাকতে পারছেন না বলে জানান শামিলা গ্রামের 
একজন গ্রামবাসী।তিনি বলেন যে,"আমরা চিকিৎসা  পাচ্ছি না ও উপবাসে আমাদের দিন কাটাতে হচ্ছে।"
"এই গ্রামে প্রায় ৩০০০ গ্রামবাসী আছে,যাদের অন্য গ্রামে যাওয়ার অনুমতি নেই,আর্মি আমাদের নিরাপত্তা দিচ্ছে কিন্তু
ইউং চং বাজারে যেতে আমাদের আর্মির অনুমতি নিতে হয় যেটা দক্ষিন বুতিদং এ অবস্থিত।
একজন স্থানীয় মুরুব্বি জানান,রাখাইন গুন্ডারা আমাদের গ্রামে আগুন ধরিয়ে দিতে চেয়েছিল কিন্তু আর্মি আমাদের
রক্ষা করেছে।
একজন রোহিঙ্গা কৃষক নাম না প্রকাশ এর শর্তে জানান,"আমরা একদিন খাবার খেতে পারি কিন্তু জানি না আমরা পরদিন
খেতে পারব কিনা,আমরা তাদের কলার বাকল সিদ্ধ করে খাওয়ায়।"
কিছু সাহায্য অন পিন,মজাই দিয়া,থারেত পিন ,থা অ পিন ,প্রিন চং ও কুদিস চং গ্রামে এসেছে,যেগুলো গত জুনে রাখাইন 
রা আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল।
বিভিন্ন সুত্র অনুযায়ী,মংডুর শরনার্থীরা খাদ্য,বাসস্থান চিকিৎসা ও ওষুধ পাচ্ছে না কারণ এনজিও ও অন্যান্য সংস্থা থেকে তারা
কোন সহযোগীতা পায় না।
মংডুর বাস্তুহারা ব্যক্তিরা পাশ্বর্বতী গ্রামে আশ্রয় নিচ্ছে যাতে তারা খাবার ও আশ্রয় পায়,কিন্তু খাবার না থাকার কারণে অনেক শিশু,
বৃদ্ধ ও অসুস্থ ব্যক্তি মারা যাচ্ছে,যথাযথ চিকিৎসা না পাবার কারণে।




Leave a Reply