বাংলাদেশ অং সান সুকির রোহিঙ্গা বিষয়ক মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে

চট্টগ্রাম,বাংলাদেশ।বাংলাদেশ সম্প্রতি অং সাং সুকির রোহিঙ্গা বিষয়ক মন্তব্য যেখানে তিনি রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ থেকে আসা অবৈধ অভিবাসী বলেছেন তার প্রতিবাদ জানিয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় জানিয়েছে ,অং সান সুকির এরুপ মন্তব্যে তারা অবয়াক হয়েছে,এবং বার্মিজ সরকারের
সাথে যায় না এই বক্তব্য যেখানে গত কয়েক বছর ধরে এই সমস্যা সমাধান এর জন্য উভয় দেশ কাজ করছে।
ইন্ডিয়ান টিভি চ্যানেল এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অং সান সুকি বলেন যে,রোহিঙারা বাংলাদেশী
যারা বার্মাতে অবৈধভাবে বাস করছে।
“বাংলাদেশ-বার্মা সীমান্তে দিয়ে বার্মাতে কি অনেক অবৈধ অভিবাসী আসছে ?আমাদের এটি বন্ধ করতে হবে না হলে সমস্যার
সমাধান কখনো হবে না।”
“এটা ভুলে যাওয়া যাবে না যে,উভয় পক্ষ দাঙার সাথে জড়িত এবং আমি কোন পক্ষ নিতে চাচ্ছি না এবং যাতে আমরা উভয় পক্ষের
মধ্যে সমঝোতা আনতে পারি।”জানান সুকি।
ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট বিবেচনা করলে দেখা যায় যে রোহিঙ্গারা বার্মাতে যুগ যুগ ধরে বাস করছে যেখানে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে ১৯৭১ সালে।
তাই রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশী বলার কোন যৌক্তিকতা নেই কারণ বাংলাদেশ স্বাধীণ হয়েছে ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে।উল্লেখ্য বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর থেকে
রোহিনঙাদের বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ ঘটেছে কারণ তারা তাদের মাতৃভূমিতে নিরাপত্তা হীনতা অনুভব করছিলেন।
গত ১৯৯১-৯২ সালে সর্বশেষ বড়রকম রোহিঙা অনুপ্রবেশ করেছিল যখন ২৫০৮৭৭ জন রোহিঙা অনুপ্রবেশ করেছিল।
পরে বাংলাদেশ,বার্মা ও ইউএনএইচসিআর ত্রিপক্ষীয় সমঝোতার মাধ্যমে বার্মিজ সরকার ২৩৬৫৯৯ জনকে ফেরত নেয়,তাদের রোহিঙা
জাতীয়তা যাছাই করে।
এছাড়া উল্লেখ্ করা হয় যে,বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৪০০০০০-৫০০০০০ রোহিঙ্গা বাস করছে যারা সীমান্ত অবৈধভাবে অতিক্রম করে বাংলাদেশে আছে।
“বাংলাদেশ ও বার্মা ও একত্রে কাজ করছে যাতে এই সমস্ত সমস্যা সমাধান করে এবং উভয় পক্ষের সর্ম্পক উন্নয়ন ও ইউএনএইচসিআর ও সহযোগীতায়
শরনার্থীদের প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করে।”
“এটি খব ভাল খবর যে,বাংলাদেশ সরকার অং সান সুকির মন্তব্যের বিরোধিতা করেছেন,এখন আমরা আশা করছি যে আর্ন্তজাতিক সম্প্রদায়ের উপর চাপ
প্রয়োগ করা হবে যাতে থিন সেন সরকার রোহিঙ্গাদের অধিকার নিশ্চিত করে ও সমস্যার সমাধান করে “,জানান ডঃ হাবিব সিদ্দিকী।

Leave a Reply