বুতিদং এ রোহিঙাদের জেলে পাঠানো হয়েছে

বুতিদং ,আরাকান।বুতিদং এর জজ কোর্ট বুতিদং জেলে কয়েকজন রোহিঙাকে ১০ বছর করে জেল দিয়েছে,উক্ত রোহিঙাদের পুলিশ
গত জুন এ দাঙার সময় গ্রেফতার করে।
“উক্ত রোহিঙাদের কোন কারণ ছাড়া পুলিশ ও দাঙা পুলিশ গ্রেফতার করে মংডুতে রাখাইন ও রোহিঙ্গাদের মধ্যে ঝামেলার পর।”
“উক্ত হাজতিদের কোর্টে দুই-থেকে তিন বার আনা হয় কিন্তু তাদের আত্নপক্ষ সর্মথনের সুযোগ দেওয়া হয় নি,যা সত্যি অবাকের বিষয়
বলে জানান একজন গ্রামবাসী যিনি তার নাম প্রকাশে অপারগতা প্রকাশ করেন।
আটকের পর লুন্ঠিন ও নাসাকা তাদের নাসাকার সদরে ও মংডুর পুলিশ হাজতে নির্যাতন চালায় এবং সে সময় নির্যাতনে অনেক রোহিঙ্গা
মারা যায় যাদের মৃতদেহ কতৃপক্ষ অজানা জায়গায় কবর দেয়।এর ফলে মংডূর অধিবাসীরা জানেন না ঠিক কতজন আটক হয়েছে এবং
মারা গিয়েছে।
এর আগে গত ১২ অক্টোবর ১৯ জন রোহিঙ্গাকে দশ থেকে বিশ বছর করে জেল দিয়েছে এবং অধিকাংশ গ্রামবাসী দক্ষিন মংডূর।
বুতিদং এর একজন অধিবাসী জানান,”বিবাদী আসলেই দোষী কিনা তা না তদন্ত করে এবং কোনরূপ আত্নপক্ষ সর্মথন এর সুযো ছাড়া
তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয় এবং তারা এখন সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন।”
বুতিদং জেলের অবস্থা প্রচন্ড খারাপ,এবং জেল পুলিশ রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন চালায় এবং তাদেরকে দৈনিক খুব কম খাবার দেওয়া হয়,
এছাড়া মাওলানাদের দাড়ি কেটে ফেলেছে এবং তাদের কোন কাপড় ও ওষুধ দেওয়া হয়ে না।এবং অনেকেই কাপড় ছাড়া বাস করছেন।
বলে জানান সম্প্রতি মুক্তিপ্রাপ্ত একজন।
এটা অত্যন্ত জরুরী যে আর্ন্তজাতিক রেড ক্রিসেন্ট যাতে তাদের অবস্থা পর্যবেক্ষন করে এবং অনেককেই তাদের পরিবার পরিজন এর সাথে দেখা করতে দেওয়া হয় না
এছাড়া অনেকেই জেলে চিকিৎসা না পেয়ে মারা গিয়ছে যাদের মৃত্যু সংবাদ বলা হয় নি।
একইভাবে আরাকানের রাজধানী সিতওয়ে এর কয়েদিরা অনেক ঝামেলায় ভুগছেন।

Leave a Reply