প্রায় ৮০০ এর বেশী ঘর মিন বা ও মারুক ইউতে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে

মিনবা,আরাকান।রোহিঙা ও রাখাইনদের মধ্যে শূরু হওয়া নতুন দাঙার ফলে প্রায় ৬০০
ঘর মিনবাতে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানান মিনবা এর একজন।

"উক্ত দাঙায় প্রায় ১০০ জন রোহিঙা মারা গেলেও সরকারী হিসেবে বলা হচ্ছে মাত্র
তিন জন মারা গেছে ও ৩৪০টি ঘর পূড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।
রাখাইনরা পুলিশ ও আর্মির সাহায্যে রোহিঙ্গা গ্রাম পারেন পিন ,মারুক ইউ,পাইকেতা
পাড়া,তারারক রো,পেন মারাং,সুদাইন রা গ্রাম গতকাল থেকে পুড়িয়ে দিয়েছে।এছাড়া
কামান ও রাখাইন পারান গ্রামের মুসলিম অধিবাসীদের থারক,সুদাইন রা গ্রাম গতকাল
সন্ধ্যা থেকে হামলা করেছে রাখাইনরা বলে জানায় মিন বা এর সুত্র।
এছাড়া ও পারেন গ্রাম যেখানে প্রায় ৫০০ এর বেশী ঘর আছে তা সকাল ৪টায় আগুন ধরিয়ে
দেওয়া হয়,এছাড়া পাইকেতি গ্রাম যেখানে ৩০০ ঘর আছে তা সন্ধায় পুড়িয়ে দেয় রাখাইনরা
সেখানের প্রায় ৫০টী ঘর ক্ষতিগ্রস্থ হয় এর ফলেমেছাড়া থারাক রাও পান মারাং গ্রামের
১৯০টি মুসলিম ঘর যা রাখাইন অধ্যুষিত এলাকায় অবস্থিত সেখানে বিকাল তিনটা থেকে আগুন
ধরিয়ে দেওয়া হয়,কিন্তু ঠিক কতটা ঘর পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তা জানা যায় নি।
এক হাজার এর বেশী রাখাইন তীর ও অস্ত্র নিয়ে রোহিঙা গ্রামসমূহে হামলা চালায় কিন্তু পুলিশ
ও আর্মি তাদের থামায় নি বলে জানায় রোহিঙা সুত্র।
সিতওয়েতে অবস্থিত রোহিঙা গ্রুপ রাখাইন রাজ্যমন্ত্রী ও মানবাধিকার কমিশনকে এই ব্যাপারে অবহিত
করলেও কেউ কোন ব্যবস্থা নেয় নি।
মারুক উ এর জুলা ফারা গ্রাম ও মিন  বা এর নাগারা পক্তু গ্রাম এ আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে কিন্তু পুলিশ
ও মিলিটারী রাখাইনদের থামাচ্ছে না।রোহিঙারা ফলে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।
রাখাইন রাজ্য এটর্নি জেনারেল হ্লা তেন জানান,কতৃপক্ষ গত ২২ অক্টোবর সকাল সন্ধ্যা কারফিউ জারি করেছে
এবং আজকে পরিস্থিত শান্ত ছিল।
এছাড়া,আনুক পাক সেক(পশ্চিম জেলে পাড়া) ও আরাশি কোয়ার্টার ক্যকপ্রু গত ২২ অক্টোবর গ্রেফতার করা
হয়,গ্রামবাসীরা আগুন নিভাতে সক্ষম হলে শুধু মাত্র বেড়াগুলো পুড়ে যায়,পড়ে কতৃপক্ষ ইমাম ও নিরাপত্তা
রক্ষীদের গ্রেফতার করে এই অভিযোগে তারা নিজেরাই আগুন ধরিয়ে দি্যেছে।

Leave a Reply