টেকনাফ স্থলবন্দরে শ্রমিক নিহত

টেকনাফ,বাংলাদেশ। একজন শ্রমিক যিনি দৈনন্দিন কাজ করেন টেকনাফ স্থল বন্দরে,গতকাল ট্রাকে কাঠ বোঝাই করয়ার সময় মারা যান বলে জানান 
তার এক সহকর্মী।

"দিনমজুর যারা কম বেতনে টেকনাফ স্থলবন্দরে কাজ করেন তাদের কোন চিকিৎসা সুবিধা নেই,এবং বন্দর কতৃপক্ষ কাঠ বোঝাই করার জন্য দিনমজুরদের
নিয়োগ দেয়,যাদের কোন অঘটন ঘটলে তার দায় কতৃপক্ষ নেয় না,উল্লেখ্য ভারী হওয়ার কারণে প্রায় সময় দূর্ঘটনা ঘটে,যেখানে স্থায়ী শ্রমিকদের বীমা রয়েছে
সেখানে অস্থায়ী দিনমজুরদের তা নেই এবং কতৃপক্ষ এই খরচ না দিতে হওয়ার জন্য দিনমজুরদের দিয়ে কাজ করায়।"
উল্লেখ্য দিনমজুররা বার্মা থেকে আমদানীকৃত কাঠ সরানোর জন্য টেকনাফ বন্দরে কাজ করে।
"গত ১৮ অক্টোবর এরকম কাঠ ট্রাকে বোঝাই করার সময় একটি কাঠ মোহাম্মদ আলমের পুত্র শামসুল আলম(২৮) এর উপর পড়ে এবং তিনি মারা যান,উল্লেখ্য
কেউ কাঠটি ধরে রেখে তাকে বাঁচাতে পারেননি।
তাকে টেকনাফ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসার জন্য সাথে সাথে নিয়ে যাওয়া হয় কিন্তু ডাক্তার আব্দুল মান্নান তাকে মৃত ঘোষনা করেন।"
উক্ত শ্রমিক লেদা ক্যাম্পের অনিবন্ধিত শরনার্থী বলে বিশ্বাস করা হচ্ছে।
অনিবন্ধিত শরনার্থীরা কাজের জন্য প্রায় স্থল বন্দরে যায় কারণ ইউএনএইচসিআর ও বাংলাদেশ থেকে তারা কোন সাহায্য সহযোগীতা পায় না,বলে জানান
একজন স্থানীয় ব্যবসায়ী।
স্থানীয়রা জানায়,প্রতি বছর একজন থেকে দুইজন এরকম কাঠ উঠা নামার সময় মারা যায় কারণ কতৃপক্ষ তাদের কোন যত্ন নেয় না।

Leave a Reply