আর্মি ও নাতালা গ্রামবাসীদের হাতে রোহিঙ্গা নির্যাতিত

মংডূ,আরাকান।আর্মি ও নাতালা গ্রামবাসীদের হাতে নির্যাতনের স্বীকার হয়েছেন একজন রোহিঙা গ্রামবাসী।ঘটনা ঘটে যখন তিনি কাঠ কেটে বাড়ি ফিরছিলেন,এই
সময় আর্মি ও নাতালা গ্রামবাসীরা তার উপর চড়াও হয়,ফলে তিনি সেখানেই জ্ঞান হারান।

“তাকে আব্দুল গফফর এর পুত্র আব্দুল করিম(২৮) হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং তার বাড়ী মংডূর গুদুসারা গ্রামে বলে জানা যায়।”
ঘটনার দিন দুপুর দুইটার দিকে আব্দুল করিম কাঠ কেটে বাড়ি ফিরছিল এই সময় একদল আর্মি ও নাতালা গ্রামবাসীরা তাকে আটক করে নির্মন নির্যাতন চালায়,ফলে তিনি জ্ঞান হারান,এরপর বাকিদের নজরে পড়ার জন্য তাকে গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়।
বিকালের দিকে ঘটনা জানাজানির পর তার আত্নীয় স্বজন ও গ্রামবাসীদের সাথে পদং এর নাসাকা ক্যাম্পে যান ও ঘটনা সম্পর্কে জানান,পরে একদল নাসাকা গ্রামবাসীদের
সাথে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে।
একজন গ্রাম্য মোড়ল জানান,”আর্মি ও নাতালা গ্রামবাসীরা আমাদের সম্পত্তি লুট করছে,ডাকাতি করছে ও গ্রামবাসীদের হয়্যা করছে কিন্তু কতৃপক্ষ তাদের কোন শাস্তি দিচ্ছে না,
কেন এমন হচ্ছে।
রোহিঙ্গা গ্রামবাসীরা জুন থেকে তাদের ঘরে আটকে আছে,তারা জীবিকা নির্বাহের জন্য বাইরে যেতে পারছে না এবং কারো কাছ থেকে সাহায্য পাচ্ছে না।
উল্লেখ্য ১৪৪ ধারা সারা আরাকানের ৭টি শহরে জারী করা হলেও তা কেবল রোহিঙ্গাদের উপর প্রযোজ্য ,রাখাইনরা যেখানে ইচ্ছা সেখানে যেতে পারছে ও গন জমায়েত
করে মিছিল ও করতে পারছে যা সত্যি অবাকের বিষয় বলে মন্তব্য করেন একজন।

Leave a Reply