মংডূ কতৃপক্ষ তথাকথিত ওয়ারেণ্ট নিয়ে রোহিঙাদের উপর নিপীড়ন চালাচ্ছে

মংডু,আরাকান।মংডু কতৃপক্ষ রোহিঙাদের নিপীড়ন  এর জন্য মিথ্যা গ্রেফতার এর ওয়ারেন্ট ব্যবহার করছে বলে জানান
মংডু গ্রাম প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা।

গত সপ্তাহে মংডু প্রশাসনের বৈঠকে এই ওয়ারেন্ট ঘোষনা করা হয়,এই সময় উক্ত বৈঠকে রোহিঙা গ্রাম প্রশাসন
কর্মকর্তা ও রোহিঙা নেতারা উপস্থিত ছিলেন।"
অন মিন্ত সো ,যিনি মংডু জেলা প্রশাসক তিনি গত ১৪ আগস্ট ৪৩৬ ও ৫১২ ধারায় রোহিঙাদের আটক করতে বলেন।
৪৩৬ ধারাতে অন্যের সম্পত্তির ক্ষতি সাধন ও ৫১২ ধারা অনুযায়ী পলাতক আসামীদের আটক করতে বলা হয়।
১৫ আগস্ট এই আইন কার্যকর হলেও এতদিন এই ব্যাপারে কেউ কিছু বলে নি,তবে পুলিশ অফিসাররা মংডূতে
এই ধারার অপব্যবহার করে রোহিঙ্গাদের থেকে অর্থ আদায় করেছে।
২৭ জন সদস্যবিশিষ্ট  তদন্ত কমিশন এর সফরের পর এই এরেস্ট ওয়ারেন্ট ঘোষনা করা হয়।
"উক্ত ওয়ারেন্ট জেলা বিচারক ঘোষনা করেছেন কি না,যদি করে থাকেন তবে পুলিশ কেন রোহিঙ্গাদের
রাস্তা,ঘর,মার্কেট থেকে গ্রেফতার করছেন?রোহিঙারা তরুন,বৃদ্ধ ও দিন মজুর।এখন যদি আসলেই এই ওয়ারেন্ট
কার্যকর হয়ে থাকে তবে আটককৃতদের কোর্টে নিতে হবে কিন্তু তা হচ্ছে না,এবং এই ওয়ারেন্ট এর হুমকি দিয়ে অর্থ
আদায়  করা হচ্ছে রোহিঙ্গাদের থেকে।
সম্প্রতি মংডুর পুলিশ অফিসাররা ১,২,৫ নং ওয়ার্ডের রোহিঙ্গাদের ও ম্যাওমা ক্যংদাং ও সে জার গ্রাম এর 
রোহিঙ্গাদের উপর নিপীড়ন চালাচ্ছে।















Leave a Reply