উত্তর আরাকানের সর্বশেষ সংবাদ

মেজর জেনারেল মং উ এর সফরের পর নিপীড়ন  বেড়েছে।
মংডূ,আরাকান।প্রাক্তন পশ্চিম কমান্ড প্রধান মেজর জেনারেল মং উ এর উত্তর আরাকানে সফরের পর
রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন ও নিপীড়নের মাত্রা আরো বেড়ে গিয়েছে।
“জেনারেল মং উ আরাকান রাজ্যের ইউএসডিপি সেক্রেটারী ও তিনি সম্প্রতি সংসদের উপর কক্ষের
সদস্য উ অং জ বিন (মংডূ), উ সে মং (বুতিদং) উত্তর আরাকান সফর করেন গত ১২ সেপ্টেম্বর।
তাদের চলে যাওয়ার পর নাসাকা ,পুলিশ,লুন্ঠিন ও আর্মি রোহিঙাদের মিথ্যা ও ভুল অভিযোগে গ্রেফতার করছে

এবং তা বাড়িয়ে দিয়েছে,অনেককে আটক ও পরে বিপুল অর্থ প্রদান এর পর ছেড়ে দেওয়া হয়।
আটককৃতদের মধ্যে মোহাম্মদ আলম(৩৫) পিতাঃশফি রহমান নিবাসঃমংগলা,তাকে নাসাকা কুলার বিল
ক্যাম্পের সদস্যরা দুপুর ১২টার দিকে গ্রেফতার করে ও ব্যাপক নির্যাতন চালায়,এছাড়া তার বাইক তার
তেকে কেড়ে নেওয়া হয়,পরে তাকে নাসাকা সদর দপ্তর এ আসঙ্কা করছে হয়ত তাকে মেরে ফেলা হবে।
ধনী হওয়ার কারণে তাকে মেরে ফেলা হতে পারে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।
এছাড়া নারি বিল এর ৬ নং নাসাকা এরিয়া হতে আবু সিদ্দিকের পুত্র মোহাম্মদ নুর(১৭)কে গ্রেফতার করা হয়
সন্ধ্যা ৬টার দিকে,সে তার ফিশিং প্রজেক্ট থেকে মাছ ধরে ঘরে ফিরছিল,পরে তিন লক্ষ্য ক্যত মুক্তিপন দেওয়ার

পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়,এছাড়া অসিউর রহমান এর পুত্র আহমেদ হুসেইনকে নাসাকা গ্রেফতার
করে পরে এক লক্ষ ক্যত মুক্তিপন দেওয়ার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়,এছাড়া হুসেন এর পুত্র আব্দুল্লাহ(২২),

মোহাম্মদ শফি এর পুত্র আখতার হুসেন(২৫) ক্যাক লা গার মার্কেটে যাওয়ার সময় তাকে ক্যাম্পে
নিয়ে যাওয়া হয় এবং ৫০০০০ ক্যত করে আদায় করে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয় বলে জানান একজন স্থানীয় ব্যবসায়ী।
এছাড়া কন্সি পিন নাসাকা ক্যাম্পের নাসাকা গতকাল ১৪ জন গ্রামবাসীকে  গ্রেফতার করে এবং অর্থ প্রদানের পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।আটককৃতরা হলেন জব্বর এর পুত্র মাওলানা আবু সিদ্দিক(৫৫),আবু বক্কর(৩৩),মঞ্জুর এর পুত্র রশিদ আহমেদ(২৫),কালু এর পুত্র দিল মোহাম্মদ(২৮),অলিসন এর পুত্র  নিজাম উদ্দিন(৪০),মোহাম্মদ হুসেন এর পুত্র আবু শামা(৫৫),মোহাম্মদ কাশিম এর পুত্র সৈয়দ আলম(৩৫),দরবেশ আলী এর পুত্র বদর আলম(৬৫),আফলাতুন এর পুত্র সৈয়দ আলম(৩৫),আবুল
বশর (২৫),মাওলানা নুরুল আমিন(৫৫) পিতা আশরাফ আলি,জব্বর এর পুত্র জারমুলুক(৫৮),মোহাম্মদ হুসেন এর পুত্র হুসেন আহমেদ(৩০)।পরে ২০০০০-৩০০০০ ক্যত দিয়ে তাদের মুক্তি দেওয়া হয়।
এছাড়া সাকের(১২) পিতাঃমোহাম্মদ আলম ও কালাম কাদের এর পুত্র আকরাম(১৫)কে নাসাকা মারধোর
করেছে কারণ তারা নাসাকার দিকে তাদের টর্চলাইট ফেলেছিল,জানান একজন গ্রামবাসী।
এছাড়া ফাদেন্সা ক্যাম্পের নাসাকা মদন আলী এর পুত্র ইমাম হুসেন(৩০)কে গ্রেফতার করতে যায়,কিন্তু
তারা তাকে পায় নি পরে ,তার মা কে গ্রেফতার করে নাসাকা ক্যাম্পে আনা হয়।
লুন্ঠিন ও নাতালা গ্রামবাসীদের ডাকাতি
১৪  সেপ্টেম্বর  একদল লুন্ঠিন নাতালা গ্রামবাসীদের সাথে দক্ষিন মংডুর বাজ্ঞনা গ্রামে গিয়ে ডাকাতি
শূরু করে,কিন্তু গ্রামবাসীরা চিৎকার করে ফলে তারা তা করতে পারে নি,এসময় নিকটে থাকা আর্মি
ঘটনাস্থলে এসে ডাকাতদের লক্ষ করে গুলি ছূড়ে এবং তাকে বুতিদং হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো
হয়।
বুতিদং শহর
এছাড়া ১৪ তারিখ মেজর জেনারেল মং উ অন্যান্যদের সাথে নিয়ে বুতিদং শহরের জেলের অবস্থা
পর্যবেক্ষন করেন,পুলিশ লুন্ঠিন এর মত সেখানে ৪৫০ বন্দী আছে,যদিও বন্দীর সংখ্যা এসবিটিও এর
মতে ৮৮০ জন।পরে জেল পরিদর্শন এর পর এই দলটি রতিদং এ যাবে রোহিঙ্গা গ্রামবাসীদের অবস্থা পর্যবেক্ষন করতে।
কোন এনজিও ও ত্রান সামগ্রী প্রদানকারী সংস্থা এই দিকে না আসার ফলে  শরনার্থীরা দুঃখের সাথে
বাস করছে,এবং তারা খাদ্য,বাসস্থান ও ওষূধের সমস্যায় ভুগছেন।
রতিদং শহরঃ
রতিদং শহরে ২৪টি গ্রামে নিরাপত্তা বাহিনীর সহায়তায় মগ সন্ত্রাসীরা পুড়িয়ে দেয়,এছাড়া বর্ষাকালে তাদের
কোন নিবাস নেয়,রাজাবিল গ্রামে ৫৫০ঘর আছে আর্মি গ্রামে নিরাপত্তা দিচ্ছে,কিন্তু তাদের আর্মি গ্রাম থেকে
জিনিস কিনতে বের হতে দিচ্ছে না।সম্প্রতি একজন তরুনকে আর্মি নির্যাতন করে কারণ সে নিকটবর্তী তার প্রতিবেশীর ঘরে গিয়েছিল ওষুধ নিতে,এছাড়া গ্রামের সমস্ত তরূণকে ও পুরুষদের নিকটবর্তী রাখাইন গ্রামে সপ্তাহে দুইবার নিয়ে যাওয়া হয় লেকচার দিতে,এবং গ্রামবাসীরা ভয় পাচ্ছে হয়ত খুব দ্রুত কিছু একটা হবে।

Leave a Reply