মংডুতে রোহিঙাদের সাথে ইউএস প্রতিনিধির সাক্ষাৎ

মংডূ,আরাকান।সকাল সাড়ে দশটায় মংডুর নং চান গ্রামে রোহিঙা গ্রামবাসীরা ইউএস প্রতিনিধি দলের সাথে সাক্ষাৎ করেন।
বার্মার ইউএস প্রতিনিধি ডেরেক জে মিশেল ও প্রশান্ত মহাসগরীয় ও পূর্ব এশিয়া বিষয়ক ইউএস পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের সহকারী


সচিব জোসেফ ইয়ুন মংডুর সেল কালি গ্রাম,সেবিনেন গ্রাম ও নং চাং গ্রাম প্রদর্শন করেন ও সাড়ে ১১টার দিকে তা ছেড়ে যান।
ইউ এস প্রতিনিধি দলের সাথে আরাকান রাজ্যের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা ছিলেন ,যার মধ্যে আঞ্চলিক উন্নয়ন সংস্থার সদস্য
শামসুল হক ও এনাম অনুবাদক হিসেবে যান।
ইউএস প্রতিনিধি দল মংডুতে হেলিকপটার  এ করে যান এবং নং চান গ্রামে অবতরন করেন,তারা নাতালা গ্রাম সেওয়েনিয়ে ও হেলিকপ্টার এ উঠার সময় একজন বৃদ্ধ লোক তাদেরকে রোহিঙ্গাদের অবস্থা বর্ননা করতে চান কিন্তু তাদেরকে তিনি তা বর্ননা করতে পারেন নি,এছাড়া অনুবাদকরা তার কথা যর্থার্থ ভাবে প্রতিনিধি দলকে অভিহিত করেন নি,পরে একজন স্কুল ছাত্র
তার কথা তুলে ধরেন এবং উত্তর আরাকানের রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি বর্ননা করেন,এছাড়া উক্ত ছাত্রকে প্রতিনিধি দল গ্রাম সম্বন্ধে,গ্রামের জীবন মসজিদ ও স্কুল নিয়ে জিজ্ঞাসা করেন।”
ছাত্রটি জানায় ,” প্রায় দুইশ বছর আগে সৃষ্টঁ হওয়া গ্রামে এখন প্রায় ৭০০০ জন মানুষ বাস করে,এবং সংঘর্ষের পর সমস্ত
মসজিদ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে,একটি স্কুল আছে গ্রামে যেখানে প্রথম থেকে চতুর্থ শ্রেনী পড়ানো হয় কিন্তু সেটিও
এখন বন্ধ ,আমাদের ঘর ও সম্পত্তি ধব্বংস লুট ও পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে রাখাইন্দের দ্বারা,এছাড়া আমরা মার্কেটে গিয়ে খাবার নিতে পারি না,এছাড়া আমরা ইউ ও আইএনজিও হেকে কোন কিছু পাচ্ছি না এবং সব ত্রান রাখাইনদের কাছে যাচ্ছে,এছাড়া উদ্ভাস্তুদের জন্য কোন আশ্রয়স্থল নেই এবং যাবতীয় আশ্রয়স্থল রাখাইনদের জন্য,আমরা আর্ন্তজাতিক সম্প্রদায়ের কাছে দাবি জানাচ্ছি যাতে আমাদের খাদ্য,আশ্রয় ও নিরাপত্তা প্রদান করা হয়।”
“প্রতিদিন নিরাপত্তা বাহিনী-নাসাকা,লুন্টিন ও আর্মির হাতে আমরা নির্যাতনের স্বীকার হচ্ছি,পুলিশ রোহিঙ্গাদের মিথ্যা অভিযোগে গ্রেফতার করছে  এবং রাখাইনদের সাহায্য করছে আমাদের উপর হামলা চালাতে।”
“এছাড়া আমি অনেক সমস্যার মুখোমুখি হব এখন মুখ খোলার জন্য ও রোহিঙাদের অবস্থার কথা বর্ননা করার জন্য।”
ইউএস প্রতিনিধি দল আরাকান এর সরকারী কর্মকর্তাদের সাথে   শরনার্থীদের ক্যাম্প পরিদর্শন করেন,এছাড়া তারা আকিয়াবে রোহিঙ্গাদের ক্যাম্প পরিদর্শন করেন,ইউ প্রতিনিধি দল এছাড়া অং মাংগালা এর রোহিঙা শরনার্থীদের সাথে দেখা
করে তাদের খোজ খবর নেন।

Leave a Reply