উত্তর মংডূতে নাসাকার অবাধ আটক,অর্থ আদায়

মংডূ,আরাকান।৬ নং নাসাকা এরিয়া কমান্ডার  ও তার সহযোগী দিল মোহাম্মদ এর পুত্র আয়াজ,ইসহাক এর পুত্র শাহ
আলম,যারা যথাক্রমে পন জার ও লাব্জার গ্রামের বাসিন্দা তারা সাম্প্রদায়িক দাঙার পর থেকে প্রচুর গ্রামবাসীকে লাবর জার
গ্রাম থেকে গ্রেফতার করে এই অভিযোগে যে তারা সহিংসতার সাথে জড়িত।
পরে বিপুল অর্থ মুক্তিপন দেওয়ার পর এই সব রোহিঙ্গা গ্রামবাসীদের ছেড়ে দেওয়া হয়।অধিকাংশ আটককৃতদের বিরূদ্ধে
অভিযোগ ছিল তারা তথাকথিত সাম্প্রদায়িক দাঙার ইন্ধনদাতা এবং তারা রাখাইনদের সম্পত্তির ধব্বংসসাধন ও আত্নসাৎ
করেছে যা সম্পূর্ন ভিত্তিহীন।
আটককৃতরা হলেন মোহাম্মদ রশিদ(পিতা আবু সিদ্দিক,  ৩৫০০০০০ ক্যত),মৌলভী হাবিব সালাম(পিতা আব্দুস সালাম,ক্যত   ২৫০০০০০), ফয়েজ আহমেদ(পিতা আবু সিদ্দিক ক্যত ২২০০০০০),হাফেজ ইদ্রিস(পিতা মাওলানা
আমির হুসেন ১৭০০০০০ ক্যত), জিয়াউল হক(পিতা বশর,১৫০০০০০ ক্যত), মহিব উল্লাহ(পিতাঃনুরুজ্জামান ২৫০০০০০ ক্যত),হাফেজ জিয়াউর রহমান ও আফাজাল রহমান (পিতা রশীদ আহমেদ ৪৫০০০০০ ক্যত), মাওলানা
মোহাম্মদ সায়েদ(পিতা আমির বক্স ২০০০০০০  ক্যত),মাওলানা মোহাম্মদ খান পিতা আব্দুস সালাম(৩২০০০০০ ক্যত), হাফেজ আলি হুসেন ও তার ভাই আলি বকত(পিতা হামিদ হুসেন ২৫০০০০০ ক্যত),মোহাম্মদ জুহর (পিতা মোহাম্মদ হোসেন ১০০০০০ ক্যত),মাওলানা আবু সিদ্দিক (পিতা আব্দুস সুক্কুর ১০০০০০০ ক্যত), হাফেজ মোহাম্মদ
তারেক (পিতা ওসমান গনি ৭০০০০০ ক্যত), মাওলানা সোনা মিয়া পিতাঃলাল মিয়া(৩৫০০০০০ ক্যত), মিসেস আয়েশা (৪০০০০০ ক্যত),মোহাম্মদ ইসহাক পিতা নাজির আহমেদ দুইলাখ ক্যত, হাফেজ কামাল পিতা আলি আকবর
৮ লাখ ক্যত,মাওলানা ইদ্রিস,পিতা মোহাম্মদ হোসেন ১৫ লাখ ম্যত,নুর আলম পিতা কিলা মিয়া ও তার পুত্র ২৫লাখ ক্যত, মোহাম্মদ হুসেন এর পুত্র মোহাম্মদ ইউসুফ ৭ লাখ ক্যত আদায়ের মাধ্যমে এদের মুক্তি দেওয়া হয়,তারা সবাই লাব্বর জার গ্রামের বাসিন্দা।
এছাড়া নাসাকা হামিদ হুসেন এর পুত্র মাওলানা মোহাম্মদ মিয়াকে আটক করে এক মিলিয়ন ক্যত এর বিনিময়ে ছেড়ে দেয়,
কিন্তু তারা থেকে পুনরায় অর্থ খুজলে দিতে অপারগতা প্রকাশ করে সে এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছে।
এছাড়া আব্দুল হাসিম এর পুত্র কলিম উল্লাহ পালিয়ে বেড়াচ্ছে কারণ সে নাসাকার অতিরিক্ত দাবি পরিশোধ করতে পারছেন না,এবং সে ইতিপূর্বে ৮ লাখ ক্যত প্রদান করেছে,নাসাকা তার থেকে আবার ৮ লাখ ক্যত দাবি করেছে।
এছাড়া ইয়াসিন এর জামাই আব্দুর রহিম নাসাকা গ্রেফতার করে এক মিলিয়ন ক্যত আদায়ের পর ছেড়ে দেয়,তাকে দশদিন আটক করা হয়েছিল এবং পরে তার কাছ থেকে আরো ১মিলিয়ন ক্যত চাওয়া হয় তা দিতে অপারগ হবার কারনে তাকে গ্রেফতার করা হয়।
নাজির আহমেদ এর পুত্র মোহাম্মদ হারুনকেও একই ভাবে ছেড়ে দেওয়ার পর পুনরায় আটক করার চেষ্টা চালায়।সে তিন লক্ষ ক্যত দিয়ে মুক্ত হবার পর আরো ৩ লাখ ক্যত দিতে পারেন নি।এখন সে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।
মংডূ মিউনিসিপ্যাল মার্কেট এর নুর মোহাম্মদ এর পুত্র কবির আহমেদ ও তার ছোট ভাইকে নাসাকা গ্রেফতার করেছে,পরে ৫ মিলিওন ক্যত আদায়ের পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।
মানবাধিকার লঙ্ঘন,বিচার বর্হিভুত হত্যাকান্ড এর মত ঘটনা মংডুতে ঘটছে এবং রোহিঙাদের আটক করা হচ্ছে অবাধে ,এছাড়া রোহিঙাদের ধর্মীয় স্বাধীনতা খর্ব করা হচ্ছে।
২১ আগস্ট সীমান্ত মন্ত্রী লে জে থিন তে জানান মাত্র ৯৮৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে, কিন্তু স্থানীয় খবর অনুযায়ী সংখ্যা আরো বেশী,এছাড়া স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লে জেনারেল কো কো জানান রোহিঙাদের উপর বাধা আরো বাড়ানো হচ্ছে।

Leave a Reply