বিশ্ব খাদ্য প্রোগ্রাম মংডূর খাদ্য সমস্যার ব্যাপারে খবর নিচ্ছে

মংডূ,আরাকান।বিশ্ব খাদ্য প্রোগ্রামের তিন সদস্য যাদের মধ্যে একজন বার্মিজ তারা গাড়িতে করে গত ২ আগস্ট মং নামা গ্রাম পরিদর্শন করেন
বলে জানান মং নামার একজন।
“আমাদের কোন খাদ্য নেই এবং আমরা ওষুধ নিয়ে সমস্যায় পরছি এছাড়া আশে পাশে কোন গাছ পালা এমনকি কলা গাছ ও নেই যে আমরা খাবার
পাব।”
এছাড়া নাতালা গ্রাম এর নারী ও শিশুদের মংডূ শরনার্থী শিবিরে আনা হয়েছে এবং পুরুষরাই কেবল থেকে গিয়েছে গ্রামে,সরকার তাদের উত্তর আরাকান
থেকে এইখানে নিয়ে আসে এবং এটা সরকারের দ্বায়িত্ব তাদের সাহায্য করা কিন্তু এখন যেহেতু তাদের ক্যাম্পে স্থানান্তর করা হয়েছে সরকারকে আর
তাদের দ্বায়িত্ব নিতে হবে না এবং কারণ আর্ন্তজাতিক সম্প্রদায় তাদের দ্বায়িত্ব নিচ্ছে।
দক্ষিন মংডূতে নাসাকা ও নাতালা গ্রামবাসীরা রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন নিপীড়ন চালাচ্ছে এবং রোহিঙারা ঘুমাতে পারছে না এবং আটকের ভয়ে
বাইরে দিনাতিপাত করছে,নাসাকা সকাল বিকাল রোহিঙ্গাদের আটকের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানান একজন।
গ্রামবাসীদের থেকে কোন খাদ্য নেই এবং তারা অনেক কষ্টে দিন পার করছে এমনকি এই রোজার মাসেও তারা তাদের ধর্মীয় দ্বায়িত্ব পালন করতে
পারছেন না।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী উতাং মং লিন ৩০ তারিখ বলেন যে সরকার তার চেষ্টার মাধ্যমে উক্ত সহিংসত্তা নিয়ন্ত্রনে এনেছে কিন্তু প্রকৃত সত্য হল এর পিছনে সরকার
আছে এবং রাখাইন -রোহিঙ্গা কোন সংঘর্ষ হয় নি ,নিরাপত্তা বাহিনী তাকিয়ে ছিল যখন কিছু বৌদ্ধ সন্ত্রাসী রোহিঙ্গাদের ঘর বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়
ও লুটপাত করে।
মুসলিম রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন হচ্ছে উল্লেখ্ করে জাতিসংঘের রিপোর্টকে বার্মিজ সরকার উড়িয়ে দিয়েছে।

Leave a Reply