জুন ২৭ এর সর্বশেষ সংবাদ

বুতিদং শহরঃ
গত রাতে ৪ জন রোহিঙ্গাকে আর্মি  কর্মকর্তা ১৫ নং বুতিদং এলাকা থেকে গ্রেফতার  করে,তাদের
বিরূদ্ধে অভিযোগ ছিল তারা রাজনৈতিক কার্যক্রমে লিপ্ত ছিল।আটককৃতদের  মধ্যে মাস্টার আবু তৈয়বের
দুইজন পুত্র ও ইমাম হুসেন ও আবিন চয় হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।তারা সবাই৭  নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা
এই প্রথম বুতিদং এ কাউকে আটক করা হল,কিন্তু গত জাতিগত দাঙাতে কাউকে গ্রেফতার করা হয় নি।
এছাড়া প্রবল বৃষ্টিপাতে উ লা প,লঙ্গা,দং,সি দং ও আলি চং গ্রাম পানির নিচে তলিয়ে গিয়েছে এবং গ্রামবাসীরা
অনেক সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন যদিও কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায় নি।পানি এখন ও নিচে নামে নি ,এছাড়া অনেক গ্রামবাসী
সকাল থেকে ঘরে আটকে পড়েছেন।
মংডু শহরঃ
আজ নাসাকা মিত  গি গ্রাম যা মংডুর অভ্যন্তরে অবস্থিত সেখান থেকে পরিবারের লিস্ট সমূহ আটক করছে,কারণ জানা যায় নি।
মংডু উত্তর ও দক্ষিন এ ভারী বৃষ্টিপাতে রাস্তাঘাত প্লাবিত হয়েছে।এছাড়া গ্রামবাসীরা পালিয়ে গিয়েছে তাদের ঘরে মহিলাদের
রেখে।
দক্ষিন মংডুতে একদল রাখাইন হামলা চালিয়েছে এবং ৫ জন রোহিঙ্গাকে আটক করেছে,এ ছাড়া তারা চাল,সোনা ও কাপড় এবং
অর্থ লুট করেছে।
এছাড়া আর্মিরা কোর্জা বিল এ ২ দিন আগে গিয়ে ৪০ জন গ্রামবাসীকে গ্রেফতার করেছে এবং এর পর তাদের তারা গ্রামের মসজিদে নিয়ে
যায় এবং মারধোর করে।এছাড়া আর্মি মসজিদ পুড়িয়ে দেই এবং কুরআন জ্বালিয়ে দেয়।এর পর তাদেরকে ট্রাকে করে মানুষ থেকে দূরে সরিয়ে
নিয়ে যায়।তাদের বর্তমান  অবস্থা সর্ম্পর্কে কোন কিছু জানা যায় নি।এছাড়া গ্রামের শিশু ও মহিলারা ভয়ে দিন কাটাচ্ছে।
এছাড়া গতদিন সন্ধ্যায় আর্মি কনসারা হয়াইচা গ্রামে দক্ষিন মংডুতে চলে যায়  এবং গ্রামবাসীরা পালিয়ে গিয়েছে এছাড়া কিছু গ্রামবাসী
নদীতে ঝাপিয়ে পড়ে,নদীর স্রোতে প্রায় অনেক মানুষ ভেসে যায়,এছাড়া সকালে গ্রামবাসীরা ১০টি মৃতদেহ উদ্ধার করে।
লুন্তিং ও রাখাইনরা নাসাকার সাথে রোহিঙাদের ঘরে আগুন জ্বালিয়ে  দেয় ,রোহিঙ্গারা আগুন দেখে তা নিভাতে ছুটে আসে
কিন্তু নিরাপত্তা বাহিনী তাদের উপর গুলিবর্ষন করে,গ্রামবাসীরা এতে নিহত ও আহত হয়,যদিও এটিকে জাতিগত দাঙা হিসেবে
প্রকাশ করা হচ্ছে কিন্তু রোহিঙ্গাদের বিরূদ্ধে এটি পূর্বপরিকল্পিত আক্রমন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।
এছাড়া একজন গ্রাম্য মুরুব্বিরা বলেন যদিও আরাকানে এই সংঘর্ষ চলছে কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এটা নিরস্ত্র রোহিঙ্গাদের উপর সরকারের
পরিকল্পিত আক্রমন।

Leave a Reply