জুন ১৭ এর সর্বশেষ সংবাদ

নিরাপত্তা বাহিনী মংডুতে রোহিঙাদের আটক করছে
নিরাপত্তা বাহিনী-পুলিশ,লুন্তিন,নাসাকা ও আর্মি মংডুর বিভিন্ন গ্রাম থেকে রোহিঙাদের আটক করছে।
নিরাপত্তা বাহিনী নং চং গ্রাম থেকে আলি থান ক পর্যন্ত সব গ্রামের তরুণ ,মুরুব্বি স্থানীয় ব্যক্তিদের খোঁজ
লাগিয়ে গ্রেফতার করছে।
আর্মি নুরুল্লাহ পাড়াতে অবস্থান নিয়েছে এবং সেখানের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে,হত্যা,লুন্ঠন,গ্রেফতার চালাচ্ছে,এছাড়া আজকে রোহিঙ্গাদের ডেকে পাঠিয়ে নিরাপত্তা বাহিনী তাদের শাসিয়েছে এবং বলেছে সামনে পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে।আর্মি মূল্যবান জিনিসপত্র দখল করেছে এবং গৃহসামগ্রী ধব্বংস করেছে।
নাওবাওনা গ্রাম থেকে ২৫ জন ও কন না পাড়া থেকে ৪০জন রোহিঙ্গাকে গ্রেফতার করা হয়েছে,উল্লেখ্য তাদেরকে ডেকে পাঠানো হয়েছিল আলোচনার জন্য,এছাড়া বাগো নিয়েনা থেকে ২০ জন,কাওজার বিল থেকে ৫ জন ,লাম্বা গনে না থেকে ৯ জন রোহিঙাকে গ্রেফতার করা হয়।
আহত ও নিহতঃ
২জন রোহিঙা নিহত ও আরো দুইজন আহত হয়েছেন কাউকতো এর বারগোয়া গ্রাম এ,
রশিদ আহমেদকে নাসাকা আর্মির সামনে হত্যা করে,ঘটনা ঘটেছে যাওমাত্তাত গ্রামে,গ্রামবাসীরা তাদের মৃতদেহ কবর স্থানে দাফন করেছে।
এছাড়া,শফিক উল্লাহকে আর্মির সামনে নাসাকা লাবাগয়েনা গ্রামে  গুলি করে হত্যা করে,নবী হুসেনকে নির্যাতন করে তার ঘর পুড়িয়ে দিয়েছে,এবং শফি এর পুত্র ইদ্রিস এর উপর অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়েছে।
এছাড়া গুদুসেরা গ্রামের গ্রামবাসীরা আটক হওয়ার ভয়ে পালিয়ে গিয়েছে।
বার্মিজ কতৃপক্ষ রোহিঙাদের তাদের ঘর থেকে বিতাড়িত করতে নতুন নতুন পদ্ধতি  সৃষ্টি করছে-তারা রোহিঙ্গাদের আটক করে-হাতে চুরি,তলোয়ার ধরিয়ে ছবি তুলে তা ছড়িয়ে দিচ্ছে এবং রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী হিসেবে প্রচার করছে,এটা পরিষ্কার যে রোহিঙাদের তাদের মাতৃভূমি থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য সরকার এরূপ করছে।”
রোহিঙ্গারা খাবারের অভাবে পড়বে যদি এই অবস্থা চলতে থাকে,বার্মিজ সরকার রাখাইনদের খাদ্য দিলেও রোহিঙাদের তা দিচ্ছে না।

Leave a Reply