মংডূতে ১২ রাখাইন অস্ত্রসহ আটক

মংডু,আরাকান।গতকাল রাত্রে ১২ জন রাখাইনকে আটক করা হয়েছে যখন তারা কাই পাড়া গ্রামে প্রুমা নদী দিয়ে তীরে উঠতে চেয়েছিল,জানান একজন গ্রামবাসী।
উল্লেখ্য,গতকাল রাত ১২টায় ১২ জন রাখাইন ৮টি অটোমেটিক রাইফেল ও আটটি লম্বা তলোয়ারসহ গাকুরা গ্রাম যা মংডূ উত্তরে অবস্থিত ,সেখানে প্রবেশ করে।তারা কাইন পাড়া গ্রামে হ্নীলা এর চৌধুরী পাড়া থেকে যান যা কক্সবাজার এর টেকনাফ থানার অর্ন্তভুক্ত।
আরাকান লিবারেশন পার্টি যা একটি রাখাইন ভিত্তিক  জঙ্গি সংগঠন তারা তার প্রাক্তন সদস্য ব্লে জানা যায়,এবং সম্প্রতি তারা বার্মিজ সরকারের সাথ চুক্তি করেছে যুদ্ধবিরতির।
তা গাকুরা গ্রামের নাসাকা সদস্য হিসেবে নিজেদের পরিচয় দেয় কিন্তু যখন আর্মি নাসাকা ক্যাম্প থেকে তাদের পরিচয় নিশ্চিত করার জন্য যোগাযোগ করে তখন তারা বলে যে তারা নাসাকা এর সদস্য না এবং
পরে তাদের গ্রেফতার করে ১৩ জুন সকালে কাউয়ার বিল এ অবস্থিত নাসাকা সদর দপ্তরে পাঠানো হয়।
রোহিঙা ও রাখাইনদের মধ্যে এই জাতিগত দাঙা শূরু হওয়ার পর হলুদ সাংবাদিকতা বেড়ে গিয়েছে বিশেষ করে রাখাইনরা খবরের কাগজ ও প্রিন্টিং মিডিয়াতে এই খবর ছড়িয়ে দিচ্ছে যে আরএসও এর ক্যাডাররা চট্টগ্রাম থেকে উত্তর আরাকান প্রবেশ করেছে যেখানে প্রকৃত ঘটনা হল রাখাইনরা এই কাজ করছে,এবং
সম্প্রতি একদল রাখাইন পুলিশ ও লুন্টিন এর সহায়তায় মংডু ও সিতওয়ে  তে রোহিঙ্গা গ্রামসমূহ জ্বালিয়ে দিচ্ছে এবং তাদের সম্পত্তিও লুন্ঠন করছে এবং অনেক রোহিঙা মারাও পড়েছে।কিন্তু বার্মিজ সরকার ও তাদের মদদপূষ্ট সংবাদ মাধ্যমগুলো অপপ্রচার চালাচ্ছে রোহিঙারা এরূপ করছে।
কিছু উগ্রবাদী রাখাইন নেতাদের মাঝে আছেন ,৩ নং ওয়ার্ডের লা মিন্ত,না মং স(পিতাঃউ নি মং),কাউ হে,পং পি,কিন মং, ১ নং ওয়ার্ডের মং আই ও ৪ নং ওয়ার্ডের থান কে।তারা প্রচুর জিনিসপত্র লুন্ঠন করেছে এবং অনেক রোহিঙা তাদের হাতে মারা গেছে।মংডুর একজন ব্যবসায়ী জানান,এটি পূর্বপরিকল্পিত।
উল্লেখ্য এই জরুরী অবস্থা কেবল রোহিঙাদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য ,রাখাইনরা কোন সমস্যা ছাড়াই চলাফেরা করছে এবং রোহিঙ্গারা সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে,যদি সরকার চায় তবে এক ঘন্টার মধ্যে আর্মি পাঠিয়ে তা সমাধান করতে পারবে কিন্তু তারা তা করছে না।
এবং রাখাইনদের  নিরাপত্তা প্রদান করা হলেও রোহিঙ্গাদের তা দেওয়া হচ্ছে না,এছাড়া জরুরী অবস্থার ফলে রাখাইনদের চলাফেরার বাধা দেয়া হচ্ছে না।
আকিয়াবের মৃতদেহগুলো অন্য জায়গায় পাঠানো হয়েছে এবং তাদেরকে ভিক্ষুদের কাপড় পড়িয়ে আইওয়াশ করা হচ্ছে যে বৌদ্ধদের হত্যা করা হচ্ছে এবং রোহিঙারা এরূপ করছে।

Leave a Reply