জুন ১৪ ও ১৫ এর ঘটনাচক্র

১৫ জুন এর ঘটনা
মংডু জুমার নামাজ হয় নি
কতৃপক্ষ আদেশবলে রোহিঙ্গাদের মংডু শহরে জুমার নামাজ পড়তে মানা করা হয়েছে,মংডুর জেলা ও শহর প্রশাসক উক্ত নির্দেশ জারি করেন।
রোহিঙাদের মানবিক সাহায্য দরকার
প্রায় ৫০০০০ রোহিঙারা প্রাত্যহিক প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা-খাদ্য,বস্ত্র,বাসস্থান,চিকিৎসা হতে বঞ্ছিত হচ্ছেন।ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে তারা কষ্টে দিনাতিপাত করছেন এবং রোহিঙ্গাদের বৃষ্টি হতে বাঁচার কোন সুবিধা নেই।এছাড়া রোহিঙ্গারা এরূপ ভারী বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে আরো মানবিক বির্পযয়ে পড়বেন।
আর্মি কতৃক রাখাইন,মারমাগি ও হিন্দু আটক
আর্মি ৪ জন রাখাইনকে বাকাগনেনা হতে গ্রেফতার করেছে,যা তিন মাইল ও কালিবাজারের মাঝে অবস্থিত।তারা স্বীকার করেছে তাদের মত আরো অনেক রাখাইন এর কাছে অস্ত্র আছে।
আর্মি এছাড়া ৩০ জন মারমাগি ও হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকদের আকিয়াব থেকে গ্রেফতার করে যখন তারা রোহিঙ্গাদের ঘর পুড়িয়ে দিতে যায় আকিয়াবে,তারা স্বীকার করেছে একদল রাখিন তাদেরকে এরূপ করতে বলেছিল।
জুন ১৪
১০ জন রোহিঙা যুবতীকে মংডুতে ধর্ষন
রহিম উল্লাহ্রর কন্যা  হামিদা(১৮),মমিনা বেগম এর কন্যা রেহানা(১৯) ও আরো ৬ জন যারা বেগুনা গ্রামের অধিবাসী,নুরুল্লাহ পাড়ার হাবি রহমান এর কন্যা নুরকাইদা(১৭) ও বশিরের কন্যা হামিদা(১৬)কে আর্মি ধর্ষন করেছে।

এছাড়া আর্মি রোহিঙ্গাদের সম্পত্তির ক্ষতিসাধন করেছে এবং রোহিঙা গ্রামসমূহ থেকে অর্থ,সোনা ও রূপা লুন্ঠন করেছে।এছাড়া অন্যদিকে দক্ষিন মংডুর রোহিঙ্গা গ্রামবাসীদের কাছ থেকে আর্মি ৫০০০০ ক্যত মূল্যমানের সামগ্রী দাবি করেছে যা আদায় না হলে তাদের হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।
রোহিঙাদের মৃতদেহ ভাসমান অবস্থায় দেখা গিয়েছে
১২টি রোহিঙা মৃতদেহ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পেয়ে যখন রোহিঙ্গারা তা পানি থেকে উদ্ধার করতে যায় তখন তাদের তা করতে দেওয়া হয় নি,এবং পুলিশ উক্ত জায়গা ঘেরাও করে রাখে।ঘটনা ঘটেছে ৩ নং ও ৫ নং ওয়ার্ডের ব্রীজের নিচে প্রবাহিত জলাশয়ে।
মংডুতে আর্মি কতৃক ডাকাতি
আর্মিরা রোহিং্যা গ্রামবাসী শামসু(৪০),মো জোহর(৩৫,ফারুক আহমেদ(৪০) ও ইসমাইলকে(৮০) আটক করে তাদের উপর অমানবিক নির্যাতন চালায় এবং আর্মি তাদের থেকে অর্থ ও স্বর্ন ছিনিয়ে নেয়।)

Leave a Reply